বুধবার , ২৪ জানুয়ারি ২০১৮
Home » জেলা সংবাদ » চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোটি টাকা নিয়ে উধাও বিধবা নারী সংস্থা

চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোটি টাকা নিয়ে উধাও বিধবা নারী সংস্থা

Chapai

Chapai

সি নিউজ : মুনাফার আশায় ও নানা প্রলোভনের প্রতিশ্রুতি পেয়ে টাকা জমিয়েছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিধবা, প্রতিবন্ধী ও অসহায় দরিদ্র নারীরা। গত ৩ বছরে জমেছিল প্রায় কোটি টাকার বেশি। আর সদস্যদের সেই কষ্টের টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি মহিলা সংস্থা। সবকিছু হারিয়ে এখন প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সংস্থার সভানেত্রী।
অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি জেলার বারঘরিয়া এলাকায় মহিলাদের নিয়ে ‘বিধবা নারী সংস্থা’ নামে একটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গঠন করেন মোসাঃ হিরামতি। এরপর অসহায়, বিধবা, প্রতিবন্ধী ও হতদরিদ্র নারীদের কাছ থেকে বিভিন্ন প্রলোভন দিয়ে শুরু হয় টাকা নেয়া। বাড়তে থাকে সঞ্চয় সদস্য। ফুলে-ফেঁপে ওঠে আমানতের পরিমাণ। তবে গত এক বছর ধরে হঠাৎই সদস্যদের সঞ্চয় নেয়া বন্ধ করে দেয় সমিতি। শুধু তাই নয়, সদস্যদের দেয়া বিভিন্ন প্রতিশ্রুতির কোনোকিছুই দেয়া হয়নি। গুটিয়ে নেয়া হয়েছে প্রধান কার্যালয়ও।
সংস্থার কয়েক প্রতারিত সদস্য জানান, গত এক বছর সংস্থার কর্মকর্তাদের নাগাল না পেয়ে প্রতিদিনই মাঠকর্মীদের কাছে ভিড় করেও কোনো ফল পাচ্ছেন না। এমনকি সংস্থার সভানেত্রী মোসাঃ হিরামতির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন তারা। শেষমেশ প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেও এখন পর্যন্ত কোনো ফল পাননি এসব হত দরিদ্ররা।
এদিকে সংস্থার মাঠকর্মী রেহেনা বেগম এবং জান্নাতুন খাতুন অভিযোগ করেন, সদস্যদের মাসিক সঞ্চয়ের টাকা ম্যানেজারের মাধ্যমে তারা সভানেত্রীর কাছে জমা দিয়েছেন। এখন সভানেত্রীর কাছে সদস্যদের টাকা ফেরত চাইলে উল্টা হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন। তবে শাহবাজপুর শাখা ব্যবস্থাপক জিয়াউর রহমান সদস্যদের টাকা ফেরতে ভূমিকা না রেখে সংস্থার সভানেত্রীর সাফাই গাইছে বলে অভিযোগ করেছেন মাঠকর্মীরা।
শিবগঞ্জ উপজেলার দুর্লভপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজিব বিধবা নারীদের টাকা আত্মসাৎ ও প্রতারণার বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করেন। জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা সাহিদা আকতার জানান, অসহায় মহিলাদের সঞ্চয় মনোভাবপন্ন করে তোলার জন্য সামান্য পরিমাণ টাকা নেয়ার নিয়ম থাকলেও মাসিক ৫০ টাকা করে নিয়ম বহির্ভূতভাবে টাকা উত্তোলন ও আত্মসাৎ করেছে সংস্থাটি। চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিধবা নারী সংস্থার সভানেত্রী মোসাঃ হিরামতি সদস্য ও মাঠকর্মীদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মূলত মাঠকর্মী ও শাখা ব্যবস্থাপকদের সমন্বয়হীনতায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
এ বিষয়ে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শফিকুল ইসলাম জানান, সদস্যদের অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত কোনো ধরনের অনুমতি না থাকলেও সংস্থাটির সভানেত্রী শিবগঞ্জ ও গোমস্তাপুর উপজেলার সদস্যদের জমাকৃত প্রায় কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। ইউএনও আরো জানান, সংস্থাটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হয়েছে।